কুমিল্লায় কৃষকদের মাঝে উন্নত জাতের ফলের চারা-কলম বিতরণ

50

লালমাই উপজেলায় মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউট আঞ্চলিক কার্যালয় কুমিল্লা এর উদ্যোগে কৃষকদের মাঝে উন্নত জাতের ফলের চারা-কলম বিতরণ করা হয়েছে। রবিবার আলীশ্বর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৫০ জন কৃষক-কৃষাণীর মাঝে প্রতি জনকে ৫ টি করে ফলের চারা বিতরণ করা হয়।

‍কুমিল্লার মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউটটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. জালাল উদ্দিন ফলের চারা বিতরণ করেন।

চারা বিতরণের পূর্বে, ফল গাছের গুরুত্ব ও ফলের গুরুত্ব সম্পর্কে তিনি বিস্তারিত আলোচনা করেন। এ সময় আরো বক্তব্য রাখেন- কৃষিবিদ মো. জুনায়েদ কবিরখান, উপজেলা কৃষি অফিসার, লালমাই, কুমিল্লা; কৃষিবিদ তৌফিকা তাহেরী, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা, এস আর ডিআই, কুমিল্লা; মো. আবুল কালাম আজাদ, উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তা, লালমাই, কুমিল্লা; মো. মোসলে উদ্দিন,উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তা, লালমাই, কুমিল্লা; মো. জহিরুল কাইয়ুম, উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তা, লালমাই, কুমিল্লা। সঞ্চালনা করেন- মো. জিয়াউল করিম, উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তা, লালমাই, কুমিল্লা।


প্রসঙ্গত, ফলদ ও বনজ বৃক্ষ আমাদের পরম বন্ধু। ফুল, ফল, কাঠ আমরা এ বৃক্ষ থেকেই পেয়ে থাকি। শুধু তাই নয় আমাদের বেঁচে থাকার জন্য প্রতি মূহুর্তে যে অক্সিজেন গ্রহন করি তা আমরা এ বৃক্ষ থেকেই গ্রহন করি। আমরা প্রতিদিন যাই খেয়ে থাকি তার সাথে নিয়মিত ফল খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। ফল শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে। শরীরের রং ফর্সা করে। মেধা বিকাশে সহায়তা করে। এ জন্য পুষ্টি বিজ্ঞানীরা বলেন- একজন মানুষ প্রতিদিন ২০০ গ্রাম ফল খাওয়া উত্তম। দেশের প্রতিটি খালি জায়গায় ফলের চারা রোপন করে এ চাহিদা মিটানো সম্ভব। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে এক ইঞ্চি জমিও যেন পতিত না থাকে, সেই লক্ষ্যে পারিবারিক পুষ্টি চাহিদা পূরণ কল্পে বিনামূল্যে কৃষকদের মাঝে সবজিও ফলের চারা বিতরণ কর্মসূচি এর আওতায় এ বিতরণ করা হয়।

ফার্মসএন্ডফার্মার/২৩জুলাই২০