গবাদিপশুর খামার রেজিস্ট্রেশন করবেন যেভাবে (আবেদন ফর্মসহ)

92

গবাদিপশুর (গরু /মহিষ/ছাগল/ভেড়া/অন্যান্য প্রাণি)

খামার রেজিস্ট্রেশনের ব্যাপারে নিবন্ধন ফিসহ ১০১২ সনে একটি সার্কুলার জারি হয়। যথাযথ প্রচারনার অভাবে বেশিরভাগ খামারির কাছে বিষয়টি ছিল অপরিচিত। কিন্তু নানা কারণে গত বছর থেকে সরকার এবং সংশ্লিষ্ঠ সংগঠনগুলো এখন জোর দিচ্ছে খামার রেজিস্ট্রেশনের ব্যাপারে। কিন্তু দেশের বেশিরভাগ খামারি জানেনইনা কিভাবে রেজিস্ট্রেশন করবেন। আবার অনেকে “খামার রেজিস্ট্রেশন” ঝামেলাপূর্ণ/ অযথা বিষয় মনে করে এই দিকে এগোতেই চান না। বাস্তবে খামার রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়াটা কিন্তু সহজ। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিস রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া আপনাকে সহযোগিতা করবে। কাজেই যারা এখনো খামার রেজিস্ট্রেশন করেননি, তারা দ্রুত উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিস যোগাযোগ করে রেজিস্ট্রেশন করে ফেলতে পারেন এখনি।

রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া
খামার রেজিস্ট্রেশনের জন্য সাধারণত দুটি উপায়ে আবেদন করা যাবে। ১. উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে সরাসরি যেয়ে কাগুজে ফর্ম পূরণের মাধ্যমে আবেদন, এবং ২. অনলাইনে ফর্ম পূরণ।

কাগুজে ফর্মে আবেদন
কাগুজে ফর্মে আবেদন করতে হলে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে খামার রেজিস্ট্রেশনের জন্য আপনি গেলে সেখান থেকে তারা একটি আবেদন ফর্ম (ফর্মটি পাওয়ার জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন: Registration form Livestock -Agrinews24) দিবে। ফর্মটা পূরণ করে আপনার খামারে গবাদিপশুর (গরু /মহিষ/ছাগল/ভেড়া/অন্যান্য প্রাণি)সংখ্যা অনুযায়ী নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকা রেজিস্ট্রেশন ফি হিসেবে সোনালী ব্যাংকে ট্রেজারী চালানের মাধ্যমে জমা দিয়ে চালান এর কপিটা প্রাণিসম্পদ অফিসে জমা দিলেই আপনার কাজ কিন্তু শেষ!

অনলাইনে আবেদন দাখিলের নিয়মাবলি

অনলাইন আবেদনের সময় সতর্কতার সাথে ফরম পূরণের প্রতিটি ধাপ সম্পন্ন করতে হবে এবং প্রেরণ বাটনে ক্লিক করার পূর্বে ভালো করে যাচাই করে নিবেন। অসতর্কতার জন্য কোন ভুল অথবা অসম্পূর্ণ আবেদন গ্রহণযোগ্য হবে না। একটি ধাপে প্রয়োজনীয় তথ্য পূরণ করে পরবর্তী ধাপে প্রবেশ করবেন। পরবর্তী ধাপে প্রবেশের সাথে সাথে পূর্ববর্তী ধাপের পূরণকৃত তথ্যসমূহ স্বয়ংক্রিয়ভাবে সিস্টেমে সংরক্ষিত হয়ে যাবে।

১. আবেদন ফরমের লাল তারকা চিহ্নিত ঘরগুলো অবশ্যই পূরণ করবেন। অন্যান্য ঘরগুলো পুরণ ঐচ্ছিক।
২. আবেদনের সময় যদি পেমেন্ট/ অর্থ পরিশোধের বিষয় থাকে তাহলে মোবাইল ব্যাংকিং বা ই-চালানের মাধ্যমে পরিশোধ করবেন।
৩. আবেদন ফরমে ছবি (প্রযোজ্য হলে) ও স্বাক্ষর আপলোড করুন এবং যে সব কাগজপত্র আবেদনের সাথে দাখিল করা প্রয়োজন (সাইজ নির্দিষ্ট করে দেয়া হয়েছে ) সেগুলো “সংযুক্ত” অপশনে ক্লিক করে আপলোড করবেন।
৪. “অফিস বাছাই করুন” অপশন হতে আবেদনটি যে অফিসে পাঠাতে চান সেই অফিস নির্বাচন করবেন।
৫. এরপর ‘প্রেরণ’ বাটনে ক্লিক করবেন। “আপনার আবেদনটি সফলভাবে প্রেরণ করা হয়েছে” মর্মে একটি বার্তা আসবে।
৬. আবেদন প্রেরণের পর আপনি একটি প্রাপ্তি স্বীকারপত্র পাবেন। এটি সংরক্ষণ করুন। পরবর্তীতে “আবেদনের সর্বশেষ অবস্থা” বাটনে ক্লিক করে এই নম্বরটি দিয়ে সর্বশেষ অগ্রগতি জানতে পারবেন।

৭. আপনি আবেদন প্রেরণ না করা পর্যন্ত আপনার সিস্টেমে তা খসড়া হিসেবে সংরক্ষিত থাকবে। পরবর্তীতে তা আপনি প্রেরণ করতে পারবেন।

অনলাইন আবেদন করার ক্ষেত্রে ই-ফর্ম পূরণের জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন:

http://online.forms.gov.bd/onlineAppli…/apply/NDIvMTUvMzM=

ফার্মসএন্ডফার্মার/২১ফেব্রুয়ারি২০২১