গরুকে কেন কাঁচা ঘাস খাওয়াবেন?

46

গরুকে দিলে ঘাস; দুধ দিবে বারো মাস। আসুন জেনে নেই, গরুকে কেন কাঁচা ঘাস খাওয়াতে হবে।

ঘাসে উপস্থিত গরুর প্রয়োজনীয় বিভিন্ন খাদ্য প্রাণঃ

খনিজ উপাদান, মিনারেলস, ক্যালসিয়াম,ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম, সোডিয়াম ও ক্লোরিন

১) খনিজ উপাদান কি! ‘যেমনঃ- লবন, লাইমস্টোন, মনো-ক্যালসিয়াম ফসফেট, ডাই-ক্যালসিয়াম ফসফেট ইত্যাদি।

২) মিনারেলস: খনিজ উপাদান বা মিনারেলস গরুর স্বাভাবিক দুধ প্রধান এবং শরীর বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। গরু সাধারণত শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় মিনারেলস ঘাস এবং অন্যান্য প্রাকৃতিক খাবার থেকে পেয়ে থাকে।

৩) ক্যালসিয়ামঃ যেহেতু দুধে প্রচুর পরিমানে ক্যালসিয়াম থাকে তাই দুধ উৎপাদনের সাথে ক্যালসিয়ামের সম্পর্ক খুবই ঘনিষ্ট। বিশেষ করে অধিক দুধ উৎপাদনক্ষম গরুর জন্য পর্যাপ্ত ক্যালসিয়াম সরবরাহ করা খুবই জরুরি। ঘাস ক্যালসিয়াম এর প্রধান প্রাকৃতিক উৎস হলেও অধিক দুধ উৎপাদন গরুর জন্য অনেক সময় কৃত্তিম ভাবে ক্যালসিয়াম সরবরাহের প্রয়োজন হয়। তাই এই সময়ে অধিক পরিমানে কাকে ঘাস সরবরাহ করা জরুরি। কাঁচা ঘাস সরবরাহে ঘাটতি হলে কৃত্তিম ভাবে বাইরে থেকে ক্যালসিয়াম সরবরাহের প্রয়োজন হয়।

গরুর দৈহিক ওজন, বয়স এবং দুধের পরিমান ভেদে গরুর শরীরে ক্যালসিয়াম এর প্রয়োজন ভিন্ন হয়ে থাকে। তবে স্বাভাবিক ভাবে দুধ উৎপাদনকারী গরুর জন্য ড্রাই ম্যাটার এর ০.৬৭%, ড্রাই পিরিয়ড এর জন্য ০.৪৫ % এবং বকনা বা ষাঁড় এর জন্য ড্রাই ম্যাটার এর ০.৪০% ক্যালসিয়াম সরবরাহ প্রয়োজন হয়, হতে পারে সেটা প্রাকৃতিক অথবা কৃত্তিম উৎস থেকে।

৪) ফসফরাসঃ গরুর শরীরে ফসফরাস এর প্রয়োজন কখনো খুব জরুরি হয়ে ওঠে, বিশেষ করে দুধ উৎপাদনের সময়ে। কারণ দুধে প্রকার পরিমান ফসফরাস বিদ্যমান থাকে। গরুর শরীরে ক্যালসিয়াম এবং এবং ফসফরাস এর ভূমিকাও প্রায় একই। ক্যালসিয়াম এবং ফসফরাস এর অভাবজনিত কারণেই গরু মূলত মিল্ক ফিভার রোগে আক্রান্ত হয়।

কাঁচা ঘাস গরুর শরীরে ফসফরাস এর প্রধান উৎস। তবে পর্যাপ্ত কাঁচা ঘাস নিশ্চিত করতে না পারলে বচ্চা প্রসবের প্রথম ৬ থেকে ৮ সপ্তাহ গরু ফসফরাস স্বল্পতায় অধিক ভুগে থাকে। স্বাভাবিক ভাবে দুধ উৎপাদনকারী গরুর জন্য ড্রাই ম্যাটার এর ০.৩৮%, ড্রাই পিরিয়ড এর জন্য ০.২৩ % এবং বকনা বা ষাঁড় এর জন্য ড্রাই ম্যাটার এর ০.৩০% ফসফরাস সরবরাহ প্রয়োজন হয়, হতে পারে সেটা প্রাকৃতিক অথবা কৃত্তিম উৎস থেকে।

৫) ম্যাগনেসিয়ামঃ কাঁচা ঘাস গরুর শরীরে ম্যাগনেসিয়াম এর প্রধান উৎস। তবে পর্যাপ্ত কাঁচা ঘাস নিশ্চিত করতে না পারলে বচ্চা প্রসবের প্রথম ৬ থেকে ৮ সপ্তাহ গরু ম্যাগনেসিয়াম স্বল্পতায় অধিক ভুগে থাকে।
স্বাভাবিক ভাবে দুধ উৎপাদনকারী গরুর জন্য ড্রাই ম্যাটার এর ০.২৭%, ড্রাই পিরিয়ড এর জন্য ০.১৬ % এবং বকনা বা ষাঁড় এর জন্য ড্রাই ম্যাটার এর ০.১৬% ম্যাগনেসিয়াম সরবরাহ প্রয়োজন হয়, হতে পারে সেটা প্রাকৃতিক অথবা কৃত্তিম উৎস থেকে।

৬) পটাসিয়ামঃ কাঁচা ঘাসে পটাসিয়াম এর চাহিদা পর্যাপ্ত থাকেনা বিধায় প্রায় সকল গরুকে কৃত্তিম উৎস থেকে পটাসিয়াম সরবরাহ করতে হয়।
পটাসিয়াম এর অভাবে গরুর শরীরে আয়নিক ইমব্যালেন্স হয়ে থাকে এবং অনেক সময় পটাসিয়াম স্বল্পতায় গরু মারাও যেতে পারে, বিশেষ করে অতি গরমের সময়। স্বাভাবিক ভাবে দুধ উৎপাদনকারী গরুর জন্য ড্রাই ম্যাটার এর ১.০%, ড্রাই পিরিয়ড এর জন্য ০.৬০ % এবং বকনা বা ষাঁড় এর জন্য ড্রাই ম্যাটার এর ০.৬০% পটাসিয়াম সরবরাহ প্রয়োজন হয়। খাবার লবন পটাসিয়াম এর প্রধান উৎস।

৭) সোডিয়াম এবং ক্লোরিনঃ খাবার লবন সোডিয়াম এবং ক্লোরিন এর প্রধান উৎস। সোডিয়াম এবং ক্লোরিন এর অভাবে গরুর শরীরে আয়নিক ইমব্যালেন্স হয়ে থাকে, বিশেষ করে অতি গরমের সময়। স্বাভাবিক ভাবে দুধ উৎপাদনকারী গরুর জন্য ড্রাই ম্যাটার এর ০.২২%, ড্রাই পিরিয়ড এর জন্য ০.৫০ % এবং বকনা বা ষাঁড় এর জন্য ড্রাই ম্যাটার এর ০.২০% সোডিয়াম সরবরাহ প্রয়োজন হয়।
অন্যদিকে বাভাবিক ভাবে দুধ উৎপাদনকারী গরুর জন্য ড্রাই ম্যাটার এর ০.২৯%, ড্রাই পিরিয়ড এর জন্য ০.২০ % এবং বকনা বা ষাঁড় এর জন্য ড্রাই ম্যাটার এর ০.২০% সোডিয়াম ক্লোরিন প্রয়োজন হয়।

অন্যান্য মাইক্রোমিনারেল হচ্ছে জিঙ্ক, আয়রন এবং কপার, যার বেশির ভাগ গরু ঘাসের মাধ্যমে সরবরাহ পেয়ে থাকে। তবে মাল্টি মিনারেলস কম্বিনেশন থেকেও কৃত্তিম ভাবে সরবরাহ করা হয়ে থাকে বিশেষ প্রয়োজন এর ক্ষেত্রে।

ফার্মসএন্ডফার্মার/ ০৬ মে ২০২১