গরুর জন্য কেনো তেলাকুচা শাক উপকারি

68

তেলাকুচা শাক খেলে খাবারের রুচি বাড়ে এবং পেটের গোলমাল কমে। পেটে সমস্যা এবং বদহজমের জন্য এই শাক খাওয়ার রেওয়াজ আছে। তেলাকুঁচোয় উল্লেখযোগ্য পরিমাণ থায়ামিন থাকার কারনে এটি পরিপাক সহায়ক।

থায়ামিন কার্বহাইড্রেটকে গ্লুকোজে পরিণত করতে সাহায্য করে। বেঙ্গালোরের একদল ডাক্তার গবেষণা করে বের করেছেন, তেলাকুচা প্রাকৃতিক ইনসুলিন হিসেবে কাজ করে। এটি প্রোটিন এবং চর্বি ভাঙতেও সহযোগিতা করে, স্থুলতা কমায়। এটি খেলে শরীরের অবসন্নতা কাটে, স্নায়ুতন্ত্র ভালো থাকে,পরিপাকক্রিয়া সহজ হয়, পরিপাকতন্ত্র ভালো থাকে, কিডনিতে পাথর সৃষ্টি হতে পারে না। তেলাকুচা ফলে আছে ‘মাস্ট সেল স্টেবিলাইজিং’, ‘এনাফাইলেকটিক-রোধী’ এবং ‘এন্টিহিস্টামিন’ জাতীয় উপাদান।

কবিরাজী চিকিৎসায় তেলাকুচার ফল এবং পাতার রস বেশ কিছু রোগে ব্যবহৃত হয়, যেমন- কুষ্ঠ, জ্বর, শোথ (edema), হাঁপানি, ব্রংকাইটিস ও জন্ডিস। যদিও ওষুধ হিসেবে ব্যবহার আঞ্চলিক; বৈজ্ঞানিকভাবে খুব বেশি পরীক্ষিত নয়। তেলাকচু, তেলাকুচা বা বিম্বি দেশের প্রায় সব অঞ্চলে বসত বাড়ির আশে পাশে, রাস্তার পাশে বন-জঙ্গলে জন্মায় এবং বংশ বিস্তার করে। সাধারণত চৈত্র বৈশাখ মাসে তেলাকুচা রোপন করতে হয়। পুরাতন মূল শুকিয়ে যায় না বলে গ্রীষ্মকালে মৌসুমি বৃষ্টি হলে নতুন করে পাতা গজায় এবং কয়েক বছর ধরে পুরানো মূল থেকে গাছ হয়ে থাকে। অবহেলিত এ লতা জাতীয় গাছটি অত্যন্ত উপকারী।

ফার্মসএন্ডফার্মার/২১নভেম্বর২০২০