বর্ষায় মুরগির খামার ব্যবস্থাপনা

47

বর্ষাকালীন খামার ব্যবস্থাপনা

১। লিটার ব্যবস্থাপনা: বর্ষাকালে বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমান বেশী থাকে এর ফলে লিটার ভিজে যায় অনেক বেশী। ভেজা লিটার থেকে নানা রকম রোগ ব্যাধি দেখা দেয়। অনেক সময় শেডের তলা ভিজে গিয়ে লিটারও ভিজিয়ে দেয়, এসবক্ষেত্রে সাময়িকভাবে ফ্লোরের উপর ত্রিপল বা পলিথিন দিয়ে তার উপর লিটার দিয়ে মুরগী পালন করা যায়।

এসময় লিটারে অনেকেই চুন ব্যবহার করেন কিন্তু এটা একটা ভূল কাজ, কারন চুন প্রথমে লিটারের পানি শোষন করে নেয় এবং পরবর্তীতে বাতাসের জলীয়বাষ্প থেকে পানি নিয়ে লিটার আরও বেশী ভিজিয়ে দেয়। এসময় লিটার থেকে জন্মানো রোগ বেড়ে যায়। সুতরাং লিটার ব্যবস্থাপনায় সতর্ক হোন।

২। খাদ্য ব্যবস্থাপনা:- বর্ষাকালে খাবার পাত্রে কম কম করে খাদ্য দিতে হবে। খাদ্য যত বেশী দিবেন সেটা তত বেশী সময় থাকবে। যত বেশী সময় ধরে থাকবে সেটা তত বেশী আদ্রতা শোষন করবে এবং গুনগত মান কমতে থাকবে। খাবার দেয়ার পর বস্তায় খাদ্য থাকলে প্রথমে ভিতরের পলিব্যাগ ভাল মতন বন্ধ করুন এবং পরে বাহিরের ব্যাগ বন্ধ করুন।

৩। পানি ব্যবস্থাপনা:- খাবার পানি অবশ্যই জীবাণুমুক্ত করতে হবে। এসময় পরিবেশে রোগ জীবাণু বেড়ে যায় এবং পানিবাহিত ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ বাড়ে।

৪। মুরগী মারা গেলে নিজে ডাক্তারি না করে সরাসরি রেজিস্ট্যার্ড ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

৫। খাদ্যের ব্যাগ সবসময় উচু স্থানে রাখুন। মাটিতে ব্যাগ রাখলে আদ্রতা শোষন করে খাদ্য নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

৬। পর্দা নিচের দিকে সবসময় ১ হাত তুলে রাখুন। বৃষ্টির ছিটা থেকে বাচতে পর্দা উপরে তুলতে পারেন কিন্তু ভূলেও কখনোও একদম বন্ধ করবেন না। উপরে অবশ্যই ১ হাত ফাকা রাখুন।

৭। এখন চারপাশে অতিরিক্ত পানি। রোগজীবাণু পানির মাধ্যমে খুব দ্রুত ছড়ায়। তাই দয়া করে মৃত মুরগী যেখানে সেখানে না ফেলে মাটিতে পুতে ফেলুন। নিজের শরীরের যত্ন নিন, সুস্থ থাকুন।

ফার্মসএন্ডফার্মার/ ০৬ মে ২০২১