যেসব কারনে আপনার গবাদিপশুকে গমের ভুষি খাওয়াবেন

249

সারা দুনিয়াব্যাপী পশুখাদ্য হিসাবে সবচে স্বাস্থ্যসম্মত এবং বহুল ববহৃত উপাদান হচ্ছে গমের ভুষি। পুষ্টিগুণ বিচারে গমের ভুষি পশুখাদ্য হিসাবে তুলনাহীন। এর সাথে রয়েছে বিশেষ কিছু স্বাস্থ্যকর কার্যকারিতা। গমের ভুষির রয়েছে বিশেষ পানি শোষণ ক্ষমতা, যে কারণে গমের ভুষি কোষ্ঠকাঠিন্য দূরীকরণে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

গমের ভূষিতে রয়েছে সুষম এমাইনো এসিড এবং যথেষ্ট পরিমান বিশেষ ধরণের ফসফরাস যা গরুর রুমেন সহজেই শোষণ করতে পারে। গমের ভুষির সবচে গুরুত্বপূর্ণ বিশেষত্ব হচ্ছে এতে আছে নন স্টার্চ কার্বোহাইড্রেট যা গরুর অতিরিক্ত এসিড সৃষ্টি করেনা, যা ভুট্টা করে থাকে।

গমের ভুষিতে যেসব পুষ্টি উপাদান রয়েছে:
ড্রাই ম্যাটার : ৮৭%
হজম যোগ্য পুষ্টি উপাদান : ৬৫-৭০%
ক্রুড প্রোটিন : ১৬%
ক্রুড ফাইবার : ১৫%
নিউট্রাল ডিটারজেন্ট ফাইবার : ৬৪%
এসিড ডিটারজেন্ট ফাইবার : ১৪.৫%
লিগনিন : ৩.৬%
হজম যোগ্য এনার্জি : ৯.৫ মেরাজুল/কেজি
ক্যালসিয়াম : ০.১৭%
ফসফরাস : ০.৯৩%
ম্যাগনেসিয়াম : ০.৫৩ %
পটাসিয়াম : ১.৩২ %
সোডিয়াম : ০.০৪%
ক্লোরিন : ০.১৬%
সালফার : ০.২১%
আয়রন : ১৫৭ পিপিএম
ম্যাঙ্গানিজ : ১২২ পিপিএম
জিংক : ৮৫ পিপিএম

মাত্রা ও সতর্কতা :

যেহেতু গমের ভুষি গরুর পাকস্থলীতে অতিরিক্ত এসিডিটি সৃষ্টি করে না, তাই গমের ভুষি অন্য খাদ্য উপাদানের তুলনায় বেশি পরিমাণে মেশানো যায়। স্বাভাবিকভাবে সুষম খাবারে ৫০% পর্যন্ত গমের ভুষি ব্যবহার করা যায়। তবে অতিরিক্ত গমের ভুষি খাওয়ালে পেট নরম বা পাতলা পায়খানা হতে পারে একই সাথে হজমে সমস্যা হতে পারে। পিডিবিডি