লাভ করতে হলে মুরগিকে যেভাবে খাদ্য প্রদান করবেন

469

পোলট্রি খামারে খাদ্য প্রদানের ক্ষেত্রে যেসব বিষয় জানা জরুরী সেগুলো খামারিদের ভালোভাবে জানতে হবে। লাভজনক হওয়ার কারণে বর্তমানে আমাদের দেশে ব্যাপকহারে মুরগির খামার গড়ে উঠেছে। আসুন তাহলএ আজকে জানবো পোলট্রি খামারে খাদ্য প্রদানের ক্ষেত্রে যেসব বিষয় জানা জরুরী সেই সম্পর্কে-

পোলট্রি খামারে খাদ্যের পাত্র ভর্তি করে দেওয়া যাবে না। খাদ্যের পাত্রের এক-তৃতীয়াংশ পর্যন্ত খাদ্যে দিতে হবে। এবং খাদ্য প্রায় শেষের দিকে আসলে পুনরায় খাদ্য দিতে হবে। এক্ষেত্রে দিনে ৩-৪ বার খাদ্য দেবার প্রয়োজন হতে পারে। এতে খাদ্যের গুণাগুণ ঠিক থাকবে।

খামারে ফ্লকের খাদ্যের পাত্র থাকবে উক্ত ফ্লকের পিঠ বরাবর। মুরগি যেন দাড়িয়ে খাদ্য খেতে বাধ্য হয়। এতে প্যারালাইসিস হওয়া শঙ্কা কিছুটা কম থাকে, ফ্লকের খাদ্য ছিটানো রোধ করা যায় ও ফ্লকের খাদ্য হজম ক্রিয়াতে সহায়ক মাধ্যম। ফ্লকের সেডে ফিড না রাখাই উচিত। এতে ফিডে ব্যাকটেরিয়া কন্ট্রামিনেশন হওয়ার সম্ভবনা অনেক বেশি থাকে। অবশ্যই ফিড অন্য কোন ঘর
বা স্টোর রুমে উচু স্থানে মজুত রাখতে হবে।

খামারের প্রতি ২০-২৫ টি ফ্লকের জন্য একটি খাদ্য পাত্র বিবেচনা করতে হবে। এবং ২ টি খাদ্য পাত্রের মাঝে একটি পানির ড্রিংকার থাকবে। এতে করে ফ্লকের মধ্যে খাদ্য খাওয়ার প্রতিযোগিতা কমবে ও প্রয়োজন অনুযায়ী মুরগি খাদ্য ও পানি গ্রহণ করতে পারবে।

খামারে বাচ্চার বয়স ১৫ দিন হলে তারপরে গ্রোয়ার বা পিলেট ফিড দেওয়া শুরু করতে হবে। তবে আজ স্টার্টার খাদ্য কাল থেকে গ্রোয়ার খাদ্য/ফিড দেওয়া যাবে না। ফিড পরিবর্তন করতে হলে ২০%, ৫০%, ৮০% অনুপাতে স্টার্টার ও গ্রোয়ার ফিড মিশিয়ে দেওয়া যেতে পারে।

ফার্মসএন্ডফার্মার/ ০৬সেপ্টেম্বর ২০২১