৮ অগ্রহায়ন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ শনিবার ২৩ নভেম্বর ২০১৯
Home / কৃষি বিষয়ক / রাজধানীতে নিম্নমূখী বাজার দর

রাজধানীতে নিম্নমূখী বাজার দর

download (1)

সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিপ্রতি ১০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত কমেছে মাছে। পাশাপাশি দর কমেছে সবধরনের মুরগি ও ডিমের দাম। তবে অপরিবর্তিত আছে চাল, ডাল ও ভোজ্যতেলের বাজার। বাজারে সবধরনের সবজির উপস্থিতি থাকায় এর দামও কমতে শুরু করেছে। সপ্তাহের ব্যবধানে সবজিভেদে ৫ থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত দাম কমেছে।

গতকাল রাজধানীর খিলগাঁও, মতিঝিল টিঅ্যান্ডটি, ফকিরাপুল কাঁচাবাজার, সেগুনবাগিচা কাঁচাবাজার, রামপুরা কাঁচাবাজার, খিলগাঁও রেলগেট বাজার কাঁচা বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে। বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সবধরনের সবজির দাম কমেছে। তবে এখনও বাড়তি রয়েছে টমেটোর দাম। বাজারে খুচরা প্রতিকেজি মানভেদে টমেটো ১০০ থেকে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এর আগের সপ্তাহেও একই দামে বিক্রি হয় পণ্যটি। সে হিসেবে অপরিবর্তিত আছে এর দাম। তাছাড়া সবপণ্যের দাম কেজিপ্রতি ৫ থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত কমেছে।

এছাড়া আকারভেদে ৫ থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত কমে প্রতিটি বাঁধাকপি ২০ থেকে ৩০ টাকা, ফুলকপি ১৫ থেকে ২৫ টাকা, লাউ ৩০ থেকে ৪০ টাকা, জালি কুমড়া ২০ থেকে ৩০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে। প্রতিকেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা কমে শিম বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়, গাজর ৫০ থেকে ৬০ টাকা, করলা ও উস্তা ৪০ থেকে ৪৫ টাকা, শসা (হাইব্রিড) ৩০ টাকা, শসা (দেশি) ৪০ টাকা, ক্ষিরা ৩০ থেকে ৪০ টাকা, বেগুন ৩০ থেকে ৫০ টাকা, পেঁপে ১৫ থেকে ২৫ টাকা, পটল ৩০ থেকে ৪০ টাকা, ঝিঙা ৩০ থেকে ৪০ টাকা, কাকরোল ৪০ থেকে ৫০ টাকা, কচুর লতি ৪০ থেকে ৫০ টাকা, কাঁচা মরিচ ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে।

প্রতি আঁটি লাল শাক ৭ থেকে ১০ টাকা, মূলা শাক ৮ থেকে ১২ টাকা, পালং শাক ১৫ থেকে ২০ টাকা, কুমড়া শাক ২০ থেকে ২৫ টাকা, লাউ শাক ২৫ থেকে ৩০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে।
নাহিদুল নামে টিঅ্যান্ডটি বাজারের এক বিক্রেতা বলেন, এখন শীতের সব সবজি বাজারে এজন্য দাম কম সবজির। সরবরাহ বাড়লে দাম আরও কমে যাবে।

সবজির দাম এ সময়ে আরও কম হওয়া উচিত দাবি করে লাবনী নামে এক ক্রেতা বলেন, এখন বাজারে সবধরনের সবজি এসেছে, তাই দাম আরও কম হওয়া উচিৎ।

এক কেজি সাইজের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৮০০ থেকে ৮৫০ টাকায়। যা গত সপ্তাহে ৮৫০ থেকে ৯০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এছাড়া ৮০০ থেকে ৯০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৬৫০ থেকে ৭০০ টাকা কেজি দরে। শিং ৩০০ থেকে ৫৫০ টাকা, পাবদা ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা, গলদা চিংড়ি ৪০০ থেকে ৬৫০ টাকা, বাগদা ৪৫০ থেকে ৭০০ টাকা, হরিনা ৩০০ থেকে ৪৫০ টাকা, রুই ২৫০ থেকে ৩৫০ টাকা, মৃগেল ২০০ থেকে ২৮০ টাকা, পাঙাস ১২০ থেকে ১৩০ টাকা, তেলাপিয়া ১৩০ থেকে ১৫০ টাকা কেজিদরে বিক্রি হতে দেখা গেছে। এসব বাজারে ১০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত কমেছে মাছের দাম।

দাম কমেছে মুরগি ও ডিমের। এসব বাজারে প্রতিকেজি বয়লার ১২০ থেকে ১৩০ টাকা, লেয়ার ১৮০ থেকে ২০০ টাকা, সাদা লেয়ার ১৬০ থেকে ১৭০ টাকা কেজিদরে বিক্রি হচ্ছে। লাল ডিম প্রতিডজন ১০০ থেকে ১০৫ টাকা, সাদা ৯৫ টাকা, হাঁসের ডিম ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা বিক্রি হতে দেখা গেছে।

ফার্মসএন্ডফার্মার২৪/জেডএইচ

আরও পড়ুন...

1-3-e1546010804772

বাংলাদেশি পণ্যের চাহিদা বাড়ছে প্রবাসে

প্রবাস থেকে পাঠানো আয় বা রেমিটেন্স মজবুত করেছে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ভিতকে। বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশের উন্নয়ন এখন …