মাছের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও রোগ প্রতিরোধে পুকুর ব্যবস্থাপনা

4

images
মাছের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও রোগ প্রতিরোধে পুকুর ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে জেনে রাখা সকল মাছ চাষিদের জন্যই জরুরী। মাছ চাষে লাভবান হওয়ার ক্ষেত্রে মাছের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও রোগ প্রতিরোধ করা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

সঠিক উপায়ে মাছের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও রোগ প্রতিরোধ করতে না পারলে লোকসান হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। আসুন জেনে নেই মাছের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও রোগ প্রতিরোধে পুকুর ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে-

মাছের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও রোগ প্রতিরোধে পুকুর ব্যবস্থাপনাঃ
১। পুকুরের পাড় ভালো করে বাঁধতে হবে যাতে দূষিত বা বিষাক্ত নর্দমার পানি, রাস্তার পানি বা জমির কীটনাশকযুক্ত পানি পুকুরে না আসে।

২। পুকুর পাড়ের জঙ্গল , জলজ আগাছা নিয়মিত পরিষ্কার করতে হবে।

৩। পুকুরে বেশি পুরোনো দুর্গন্ধ যুক্ত কাদা থাকলে অবশ্যই সংস্কার করে দিন !

৪। সম্ভাব্য ক্ষেত্রে পানি পাল্টে নেবেন নইলে পানি শুকিয়ে পুকুরের তলদেশে রোদ ও হাওয়া বাতাস লাগতে দিন ।

৫। পুকুরে নিয়মিত চুন প্রয়োগ করুন । প্রতিমাসে বিঘাপ্রতি.. চার থেকে পাঁচ কেজি চুন দিলে মাছের স্বাস্থ্য ভালো হয় , বাড়ে ভালো ও অনেক রোগ নিয়ন্ত্রনে রাখা যায়।

৬। গরমকালে পুকুরে পানি কমে গেলে পানির তলদেশের তাপমাত্রা অনেকটাই বেড়ে যায়, যার জন্য একটি ছায়া জায়গার ব্যাবস্থা রাখতে হবে।

৭। পুকুরে খাদ্যের জোগান ঠিক রাখতে হবে।

৮। পুকুরে উপযুক্ত সংখ্যায় মাছ রাখতে হবে। কখনো কম বা বেশি মাছ দেওয়া যাবে না।

৯। রোগমুক্ত ও স্বাস্থ্যবান পোনা ছাড়তে হবে।

১০। মাসে অন্তত একবার জাল টানা বা নেটিং অবশ্যই জরুরী। এতে মাছের বৃদ্ধি ও সাস্থ্য পরীক্ষা দুটোই হয়ে যায় ও পুকুরের তলদেশ ঘেঁটে যাবার ফলে বিষাক্ত গ্যাস বেরিয়ে যায়।

১১। জাল টানা দিয়ে মাছের উপর পানির ঝাপটা মেরে দিলে মাছের গায়ের পুরোনো লালা কেটে যায় ফলে মাছ দ্রুত বাড়ে। পুকুরে কোনো ভাবেই বিষ প্রয়োগ করা যাবে না।

ফার্মসএন্ডফার্মার/১৭ফেব্রু২০২০